বয়স মাত্র ১২ বছর কিন্তু প্রোজেরিয়া রোগে আক্রান্ত হওয়ায় ৯০ বছরের বুড়ির মতো হয়ে গেছে কারেন ওরডোনেজ


বয়স মাত্র ১২ বছর কিন্তু তাকে দেখতে মনে হচ্ছে সে ৯০ বছরের বুড়ি। প্রোজেরিয়া নামক রোগে চামড়া জড়ো হয়ে হাড্ডির সঙ্গে লেগে দেখতে বুড়ির মতো হয়েছে সে।

মেয়েটির নাম কারেন ওরডোনেজ। জন্ম লাতিন আমেরিকার দেশ কলোম্বিয়ায়। তবে এ রোগে আক্রান্ত হওয়ায় লাতিন আমেরিকায় খুবই জনপ্রিয় কারেন ওরডোনেজ। কলোম্বিয়ায় সবাই তাকে চেনে।

হাজার হাজার মানুষের ভালোবাসাও পেয়েছে সে। তার ইচ্ছা ছিল বড় হয়ে পুলিশ অফিসার হবে। তাই দেশটির পুলিশপ্রধান জীবিত অবস্থায় তাকে পুলিশের অফিসার বানিয়ে তার ইচ্ছা পূরণ করেছেন।


তার স্বপ্ন ছিল বড় হয়ে পুলিশ অফিসার হওয়া। এটা জানার পর দেশটির পুলিশপ্রধান তাকে সম্মানস্বরুপ পুলিশ অফিসারের মর্যাদা দেন

প্রোজেরিয়া নামক দুরারোগ্য ব্যধিতে আক্রান্ত হয়েও সবসময় হাসিখুশি থাকতো কারেন ওরডোনেজ। সে অনেকটা মজার মানুষও। স্কুলের বন্ধুদের সে বলতো, সে তো তাদের দাদির মতো। তাদের দাদির সঙ্গে তার চেখারার খুব মিল। অর্থাৎ নিজের চেহারা নিয়ে খুবই সচেতন ছিল সে। অনেক সময় নিজেকে নিয়ে হাসি তামাশা করতো।

সম্প্রতি গণমাধ্যমে সাক্ষাৎকার দিয়েছিল কারেন ওরডোনেজ। সেখানে সে বলেছিল, ‘আমি আমার বন্ধুদের সঙ্গে থাকতে চায়। আমি কখনো একা হতে চাই না।’ আর মানুষ হিসেবে সে এরকমই। সে সবসময় বন্ধুদের সঙ্গে হাসিখুশি থাকতে পছন্দ করতো।

এ রোগে আক্রান্ত হওয়ায় অনেক গণমাধ্যমের মুখোমুখি হয়েছে কারেন ওরডোনেজ। সে সুবাদে সারা কলোম্বিয়ায়, তার ব্যাপক পরিচিতি। তার মৃত্যুতে লাখ লাখ মানুষ চোখের জল বিসর্জন দিয়েছে।


পুলিশ ক্যাম্পে কারেন ওরডোনেজ। পুলিশ অফিসাররাও তাকে খুব স্নেহ করতেন

প্রোজেরিয়া খুব জটিল জেনেটিক রোগ। রোগটির পেছনে মিউটেশন প্রক্রিয়া কাজ করে। অনেকে এটিকে বংশীয় রোগ বলে ধারণা করেন। কিন্তু তার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায় না।

কারেন ওরডোনেজের ব্যাপারে ডাক্তার বলেছিলেন, বেশিদিন বাঁচবে না সে। কারণ এ রোগে আক্রান্ত মানুষ ১২-১৫ বছর বাঁচে। ডাক্তারের কথায় ঠিক হয়েছে। গত ২৯ ডিসেম্বর মারা গেছে কারেন।

অনেক ক্ষেত্রে অল্প বয়সে বুড়িয়ে যাওয়া সকল রোগকে প্রোজেরিয়া বলা হয়। কিন্তু বেশিরভাগ সময় প্রোজেরিয়া দ্বারা নির্দিষ্টভাবে হাচিনসন-গিলফোর্ড প্রোজেরিয়া সিন্ড্রোম (HGPS)কে বোঝায়।

কলোম্বিয়ার চিপ পুলিশ সুপার জরগো নিয়েতোর আমন্ত্রণে পুলিশ ক্যাম্প ভ্রমণ করে কারেন ওরডোনেজ

বিজ্ঞানীরা প্রোজেরিয়া নিয়ে নানা গবেষণা করেছেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো ওষুধ আবিষ্কার করতে পারেনি। তাই এ রোগে আক্রান্ত রোগীর মৃত্যু নিশ্চিত। আর তারই ধারাবাহিকতায় কারেন ওরডোনেজও কোটি কোটি মানুষকে কাঁদিয়ে চলে গেল। -নতুন সময়

News Page Below Ad