শুল্ক ফাঁকি দিয়ে বাংলাদেশে আমদানি করা একটি বিলাসবহুল গাড়ি জব্দ করেছে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ।
আজ সোমবার রাজধানীর কমলাপুরের কনটেইনার ডিপো (আইসিডি) থেকে গাড়িটি জব্দ করা হয়। উত্তর কোরিয়ার এক কূটনীতিক শুল্ক ফাঁকি দিতে মিথ্যা তথ্য দিয়ে এই গাড়িটি আমদানি করেছিলেন।
শুল্ক গোয়েন্দা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. মঈনুল খান জানান, ওই কূটনীতিকের নাম হ্যান সন ইক। তিনি বিএমডব্লিউ এক্স ফাইভ মডেলের গাড়ি মিথ্যা ঘোষণা দিয়ে আমদানি করেছিলেন বিলাসবহুল রোলস রয়েস মডেলের গাড়ি। এতে নানা ধরনের সুযোগ-সুবিধা রয়েছে। গাড়িটির বাজারমূল্য ৩০ কোটি টাকা বলেও জানান তিনি।
বার্তা সংস্থা বাসস জানিয়েছে, যে কূটনীতিকের নামে গাড়িটি আমদানি করা হয়েছে, তিনি এরই মধ্যে বাংলাদেশ থেকে বহিষ্কার হয়েছেন। সিগারেট চোরাচালানের দায়ে গত বছরের আগস্ট মাসে তাঁকে বহিষ্কার করা হয়।
দীর্ঘদিন নজরদারিতে রাখার পর আজ শুল্ক-গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের সদস্যরা বাংলাদেশ থেকে বহিষ্কৃত এই কূটনীতিকের আমদানি করা বিলাসবহুল রোলস-রয়েস গাড়ি শুল্ক ফাঁকির অভিযোগে জব্দ করে।
ড. মইনুল খান আরো জানান, কমলাপুর আইসিডিতে আনা কনটেইনার খুলে রুপালি রঙের ৬৬০০ সিসির গাড়িটি জব্দ করা হয়। ঢাকাস্থ উত্তর কোরিয়া দূতাবাসের সাবেক প্রথম সচিব হ্যান সন ইক বি এম ডব্লিউ এক্স ফাইভ ঘোষণা দিয়ে ৬৬০০ সিসির রুপালি রঙের ঘোস্ট মডেলের বিলাসবহুল এই গাড়িটি আমদানি করেন। এটি আমদানির ক্ষেত্রে প্রায় ২২ কোটি টাকা শুল্ককর ফাঁকি দেওয়া হয় বলেও জানান এই কর্মকর্তা।
এর আগে উত্তর কোরিয়ান দূতাবাসের এই ফার্স্ট সেক্রেটারিকে ২৭ কেজি সোনা চোরাচালানের সময় হাতেনাতে ধরা হয়। উত্তর কোরিয়ার দূতাবাসের নামে আসা একটি কনটেইনার পরীক্ষা করে প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকা সমমূল্যের ইলেকট্রনিক সামগ্রী ও বিদেশি সিগারেটসহ অবৈধ পণ্যও পাওয়া যায়।

News Page Below Ad